এহসান উদ্দিন রানা, ফরিদপুর প্রতিনিধি :  ফরিদপুরের সালথা উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের খারদিয়া গ্রামের দাঙ্গাবাজ ৭ মামলার আসামী রফিক মোল্যাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (৮ জুলাই) সন্ধ্যায় ইউনিয়নের উজিরপুর বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়। সে খারদিয়া গ্রামের কাজীপাড়ার মেছের মোল্যার ছেলে.

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, খারদিয়ার রফিক মোল্যা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হুমায়ন খার সাথে হাত মিলিয়ে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের জন্য হামলা, বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে ঐ এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। গত ৭ই মে সকালে রফিক মোল্যা ও হুমায়ন খানের নেতৃত্বে তার সমর্থকরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর মিয়ার সমর্থকদের ২৫/৩০টি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টাকালে পুলিশের উপরও হামলা চালায় রফিক বাহীনি।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর মিয়া বলেন, অন্যায় অত্যাচার, বাড়িঘর ভাংচুর করেও থেমে থাকেনি রফিক মোল্যা, ইলিয়াছ কাজী ও হুমায়ন খা। তাদের অত্যাচারে ২নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ইমরুল খান ও ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য সিরাজুল বিশ^াসসহ আওয়ামী লীগের সমর্থীত ২০টি পরিবার দুই মাস ধরে ঘর-বাড়ি ছাড়া। রফিক মোল্যার লোকজন এখনও এলাকায় উত্তেজনা সৃষ্টি করার পায়তারা করছে।
সালথা থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ মোস্তফা কামাল জানান, গ্রেফতার কৃত রফিক মোল্যার বিরুদ্ধে পুলিশ অ্যাসল্ট মামলা ও দ্রুত বিচার আইনে মামলাসহ ৭টি মামলা রয়েছে।

সালথা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, পুলিশ অ্যাসল্ট মামলার পলাতক আসামী রফিক মোল্যাকে বুধবার সন্ধ্যায় গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে তাকে ফরিদপুর বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply