prothombarta24

হাসান মাহমুদ পারভেজ, ব্রাহ্মাণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ
আজ শনিবার(২১শে মার্চ)সকাল ১০ ঘটিকার সময় আখাউড়ার মোগড়া ইউপির মোগড়া গ্রামের শফিকুর রহমান(৫৫)এর বাড়িতে সাংবাদিকদের উপর সন্ত্রাসী হামলা করা হয়।হামলায় গুরুতর আহত হয়েছে এশিয়ান টেলিভিশনের আখাউড়া উপজেলা প্রতিনিধি অমিত হাসান আবির (২৫),দৈনিক আমাদের বাংলার আখাউড়া উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ ইসমাইল হোসেন(৩৩)এবং দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশের আখাউড়া উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ জুয়েল মিয়া(২৫)।হামলায় সাংবাদিক আবিরের মুখ রক্তাক্ত হয়,বাম হাতের কব্জি জখম হয়,সাংবাদিক জুয়েল ও ইসমাইলের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে জখম ও রক্তাক্ত হয়।হামলায় আহত সাংবাদিকরা জানান,আজ সকাল ১০ ঘটিকার সময় আখাউড়ার মোগড়া ইউনিয়নের মোগড়া গ্রামের অধিবাসী মোঃ শফিকুর রহমান(৫৫) পিতা মৃত আব্দুল ওহাব আমাদেরকে মুঠোফোনে ফোন দিয়ে জানান যে তার বাড়িতে একদল সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী ও ভুমিদস্যু হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাঙচুর করে এবং তার ছেলে মেয়েদের মারধর করে। খবর পেয়ে সাংবাদিকরা যখন ঘটনাস্থলে প্রবেশ করে তখন উৎপেতে থাকা সন্ত্রাসী আবু সায়েদ(৫৫)পিতা আবদুল ওহাব, সুমন মিয়া(৩২) পিতা আবু সামাদ, বাকের খন্দকার(৪০) পিতা অজ্ঞাত, গোলাম মোস্তফা(৫০) পিতা-মৃত আব্দুল জলিল, আব্দুল কাদের(৩৫) পিতা-মৃত আব্দুল জলিল, আবুল কাশেম(৩০) পিতা-মৃত আব্দুল জলিল, জবিউল্লাহ (২০)পিতা মোস্তফা,নাইম(১৮)পিতা আব্দুল কাদের, রহিমা খাতুন (২৪)পিতা আবু সামাদ সহ আরো অনেকে দলবল নিয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাংবাদিকদের উপর হামলা করে এবং সাংবাদিকদের মোবাইল ফোন,প্যানাসনিক ডিজিটাল ক্যামেরা(আনুমানিক মূ্ল্য ১লাখ ২০ হাজার টাকা) এবং মানিব্যাগ সহ মোট ১১ হাজার টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়।পরে সাংবাদিকরা গুরুতর আহত অবস্থায় আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে চিকিৎসা নেয়ার পর সাংবাদিক আবির(২৫)বাদী হয়ে আখাউড়া থানায় মামলা দায়ের করেন।অভিযোগকারী শফিকুররহমান(৫৫)সাংবাদিকদের জানান, দীর্ঘদিন ধরে আমার প্রতিবেশী মৃত আব্দুল জলিলের তিন ছেলে ও তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা আমাদের মারধর, হামলা ও অত্যাচার করে আসছে। আজ হামলার পর মোগড়া ইউপির চেয়ারম্যান জনার মনির সাহেব জানান, হামলাকারীদের সর্বোচ্চ বিচারের জন্য আমি সার্বিকভাবে সহযোগিতা করব।আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও)জনাব তাহমিনা আক্তার রেইনা বলেন, অভিযুক্তদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

এ ব্যাপারে আখাউড়া থানার ওসি রসুল আহমেদ নিজামী বলেন,মামলা নেয়া হয়েছে।আমি খবর পাওয়ার পর ফোর্সসহ এসআই নিতাইকে পাঠিয়েছি। ক্যামেরাটি উদ্ধার করা হয়েছে।দ্রুত আসামীদেরকে গ্রেফতার করার চেষ্টা অব্যাহত আছে। সাংবাদিকদের উপর সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছে আখাউড়া উপজেলা প্রেসক্লাব এবং বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম(বিএমএসএফ)এর আখাউড়া উপজেলার সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply