মোঃ আল-আমিন, ঝালকাঠিঃ সময়ের বিবর্তনে পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে হারিয়ে যেতে বসেছে কবি রজনীকান্ত সেনের কাল জয়ী কবিতার সেই বাবুই পাখির বাসা। শুধু বাবুই পাখি নয়, প্রায় সব ধরনের পাখিই আজ হারিয়ে যাচ্ছে। আর এ দু:সময়ে বাবুই পাখির কলরবে মুখরিত হয়ে উঠেছে ঝালকাঠি সদর উপজেলার নৈকাঠি, কৃত্তিপাশা, নবগ্রাম ও নলছিটি উপজেলার আমিরাবাদ গ্রাম। প্রকৃতির অপরুপ শিল্পের কারিগর বাবুই পাখির বাসা বাতাসে দুলছে এই গ্রাম গুলোতে। গ্রামগুলোর তাল-নারিকেল, পাখুরির গাছে গাছে দেখা মিলছে বাবুই পাখির শৈল্পিক অট্টালিকা।

পাখি প্রেমিকরা বলেন, প্রাচীন বৃক্ষ নিধন, ফসলে কীটনাশক ব্যবহার আর জলবায়ুর পরিবর্তনে আশঙ্কাজনক হারে হ্রাস পাচ্ছে পাখির সংখ্যা। ফলে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পাশাপাশি ক্ষতিগ্র¯Í হচ্ছে পরিবেশ ও সাহিত্য।
কীটনাশক ব্যবহারে পরিবেশ অসুস্থ হচ্ছে আর উৎপাদন খরচ বাড়ছে কৃষিতে। পোকা দমন ও পরিবেশ সুস্থ রাখতে পাখির ভূমিকা উলেøখ্য করার মতো। এছাড়াও পাখি নিয়ে কবি সাহিত্যকরা রচনা করেন গান-কবিতা-গল্প ও ছড়া। কিন্তু আজ বৈষ্মিক উষ্ণতায় হারিয়ে যাচ্ছে জীব বৈচিত্র।

অপর দিকে ফসলে অতিরিক্তি কীটনাশক ব্যবহার, নির্বিচারে পাখি হত্যা, প্রাচীন বৃক্ষ নিধন ও নিরাপদ আশ্রয়ের অভাবে বংশ বৃদ্ধি হচ্ছে না পাখির। তাই দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে পাখি। ঝালকাঠি সদর উপজেলা নিবার্হী অফিসার বলেন, হরিপুরে প্রাচীন ও উচু গাছের আধিকতার কারণে এই উপজেলায় পাখির সংখ্যা উলেøখ করার মত। তবে পাখি যাতে অবাধে বিচরণ করতে পারে সে বিষয় সরকারের পাশাপাশি সাধারণ মানুষদের এগিয়ে আসতে হবে।

Leave a Reply