জীবনের মানেই জীবন। কিছু সুক্ষ সুক্ষ গল্পের সংমিশ্রণে তৈরি হয় এক একটি জীবন। লেখকরা তাদের বই গুলোতে এই জীবনের গল্পই বলেন। তরুণ লেখিকা আহমেদ শিমুও তার নতুন উপন্যাস, “অদৃশ্য দেয়াল” বইটিতে এই জীবনের গল্পই বলেছেন।

লেকিকার কথা- পৃথিবী রহস্য পছন্দ করে।আর এ রহস্যের প্রতিটা জালে আটকে থাকে জীবনের ঘটনা প্রবাহগুলো। ডিপ্রেশন প্রতিটা মানুষের জীবনেই কম বেশি থাকে। কষ্ট হলেও আমরা একসময় সব মানিয়ে নেই। দিব্যি ছুটে চলি। যে কোন পরিস্থিতিতে বেঁচে থাকতে জানলেও আমাদের মনটা মাঝে মাঝে থমকে দাঁড়ায়। একটা জীবনে হাজারো দায় বদ্ধতা থাকে। খুব পছন্দের মানুষটাকে না পাওয়ার যন্ত্রণা। যা প্রতিনিয়ত আমাদেরকে ভাবায়। চারিদিকে অদৃশ্য দেয়ালের বেড়াজালে আটকে পড়ে থাকে রহস্যের দিগন্তরেখা। যেটা উন্মচন করতে গেলে নিজের অস্তিত্বটুকুও হারিয়ে যাবার ভয় থাকে। তাই আমরা নিজেকে সামলে নেই। অজানা ভয়কে সামনে রেখে আমরা চলতে থাকি। জীবন এমনই যেখানে দুঃখ আছে,কষ্ট আছে ,আবার এগুলোর মাঝেও আছে হাজারো শৈল্পিকতা। বাস্তবতা বলে যে জিনিস আছে সেগুলো আমরা এড়াতে পারিনা। তাই অদৃশ্য দেয়ালের বেড়াজালেই আটকে পড়ে থাকে নিজের ভেতরের সীমাবদ্ধতাগুলো। যা দেখা যায় না শুধু অনুভব করা যায়। সামাজিকতা, রোমান্টিকতা, ভয়, রহস্যর সমন্বয়েই মূলত অদৃশ্য দেয়াল উপন্যাসের বেষ্টনী যা আমাদের চলার পথের সত্যি ঘটনাগুলোর সাথে পরিচয় করিয়ে দিবে। কখনো হাসাবে আবার কখনো কাঁদাবে।

“অদৃশ্য দেয়াল” বইটি লেখিকার তৃতীয় গ্রন্থ। এই বইটি পাওয়া যাবে এবারের বই মেলার শব্দশৈলী প্রকাশনীতে। এর আগে তার দুইটি বই প্রকাশিত হয়েছে। লেখিকা ইতিমধ্যে তার লেখনির মাধুর্য দেখিয়ে পাঠক মনে যায়গা করে নিয়েছেন। “স্পর্শিত অনুভূতি” লেখিকার সর্বশেষ কাব্যগ্রন্থ। ২০১৯ এর বইমেলাইয় তার “শেষ পৃষ্ঠা” উপন্যাসটি বেশ সমাদৃত হয়েছে। বইটি আদিত্য অনিক প্রকাশনীর বেষ্ট সেলিং বই ছিল।

Leave a Reply