ফরিদপুরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহাবুবুর রহমান খান-এর দাফন সম্পন্ন

এহসান রানা, ফরিদপুর: বুধবার বাদ যোহর আলীপুর গোরস্থান জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহাবুবুর রহমান খানের প্রতি রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদানের পর সর্বস্তরের মানুষ এই বীর সন্তানের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে। প্রথমে জেলা ও পুলিশ প্রশাসন শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে। এরপর জেলা আওয়ামী লীগ, শহর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ তার প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে। উপজেলা প্রশাসন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উদয়ন সংঘ, আলীপুরবাসী, নিউ মার্কেট ব্যবস্থাপনা কমিটি, রেডক্রিসেন্ট, ন্যাশনাল ব্যাংক লিঃ, ফরিদপুর ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন,  রতন ব্যানার্জী স্মৃতি সংঘ,  রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, রেস্তোরা মালিক সমিতি,  শহিদ সুফী ক্লাব,  হাসপাতালসহ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এই বীর মুক্তিযোদ্ধার শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।

জানাজার পূর্বে  তার পুত্র তাজবীর খান রিজেন্ট বক্তব্য রাখেন, তিনি বলেন বাবা যদি আপনাদের কোন অন্যায় করে থাকে ক্ষমা করে দিবেন। আর কেউ যদি কোন কিছু তার কাছে পেয়ে থাকেন জানাবেন আমি দিয়ে দিবো।
পরে মরহুমের ছোট ভাই কাবুল খান সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনায় সকলের নিকট দোয়া প্রার্থনা করে। সঞ্চালনায় থাকা কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য মোঃ ফারুক হোসেন এই আলোকিত মানুষের কর্মকান্ড আংশিকভাবে তুলে ধরেন। পরে নামাজের জানাজা শেষে আলীপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এই শ্রদ্ধাজ্ঞাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডঃ সুবল চন্দ্র সাহা, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন, সহ-সভাপতি শিল্পপতি শামীম হক, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য অ্যাডঃ শামসুল হক ভোলা মাস্টার, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য মোঃ ফারুক হোসেন সহ নেতৃবৃন্দ। এছাড়া ফরিদপুর প্রেসক্লাব, ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটি সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পেশাজীবি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা, ফরিদপুর জেলা আ.লীগের সাবেক অর্থ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান খান  করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহে রাজিউন)। তিনি গত ২৪ আগস্ট থেকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সেখানেই ১৫ সেপ্টেম্বর ভোর ৪.৩০ মিনিটের সময় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। দীর্ঘ ২১ দিন করোনাভাইরাসের সাথে যুদ্ধ করে অবশেষে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। মৃত্যুকালে ১ পুত্র, ১ কন্যা, স্ত্রীসহ অসংখ্য গুণগাহি রেখে গেছেন।

Leave a Reply