পাওয়া গেল নতুন উসাইন বোল্ট! ১১ সেকেন্ডে ১০০ মিটার

19

উসাইন বোল্টকে চেনেন না এমন ক্রীড়ামোদী মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। জ্যামাইকান এই গতিদানবকে পৃথিবীর সর্বকালের দ্রুততম মানব বলা হয়। তিনি পাঁচবার বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন। এছাড়াও তিনবার অলিম্পিক স্বর্ণপদক পেয়েছেন। ১০০ মিটার, ২০০ মিটার এবং দলীয় সঙ্গীদেরকে নিয়ে ৪×১০০ মিটার রিলে দৌড়েও বিশ্বরেকর্ড ও অলিম্পিক রেকর্ডের অধিকারী এই বোল্ট।

বোল্ট ১০০ মিটার দৌড় ৯.৫৮ সেকেন্ডে এবং ২০০ মিটার দৌড় ১৯.১৯ সেকেন্ডে শেষ করে বিশ্বরেকর্ডটা নিজের দখলে রেখেছেন। তার ধারেকাছেও নেই আর কোনো স্প্রিন্টার। ভবিষ্যতেও আসবে কি না, সন্দেহ আছে।

তবে এই এশিয়াতেই যদি এমন দ্রুততম কোনো মানব পাওয়া যায়, তবে কেমন হবে? ভারতীয় উপমহাদেশের মানুষদের আশা দেখাচ্ছেন মধ্যপ্রদেশের ১৯ বছর বয়সী এক যুবক, নাম রামেশ্বর গুরজার।

খালি পায়ে মাত্র ১১ সেকেন্ডে তার ১০০ মিটার দৌড়ের একটি ভিডিও ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। যেটা নজরে এসে গেছে মধ্যপ্রদেশের ক্রীড়ামন্ত্রীরও। ভোপালের টিটি নগর স্টেডিয়ামে ‘স্পিড টেস্টে’র জন্য ডাকা হয়েছে এই যুবককে।

এ নিয়ে গুরজার বলেন, ‘আমি আমার হারিয়ে যাওয়া মহিষগুলোকে খুঁজছিলাম। এ সময় ক্রীড়ামন্ত্রীর ফোন পাই। আমি টিভিতে উসাইন বোল্টকে দেখেছি। আমি সবসময় ভাবতাম, ভারতীয়রা কেন তার রেকর্ড ভাঙতে পারবে না! আমার আশা, যদি ঠিকমতো সুযোগ সুবিধা ও ট্রেনিং পাই, তবে তার রেকর্ড ভাঙতে পারব।’

রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী জিতু পাওয়ারি গুরজারের প্রতিভা নিয়ে বলেছেন, ‘সে জাতীয় সম্পদ হতে পারে যদি সঠিক পেশাদার সহায়তা পায়। সে এখন ভোপালে আছে। সামনের দিনগুলোতে স্থানীয় কোচরা তার প্রতিভার পরীক্ষা নেবেন। ভবিষ্যতে এই একাডেমিতে থেকে সেরা কোচদের অধীনেও কোচিং করার সুযোগ পেতে পারে সে।