ডোনাল্ড ট্রাম্পের নৈশ্য ভোজ সভায় মেয়ে পুতুলকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী

0
220
Spread the love

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেয়া নৈশ্য ভোজে গতকাল মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুলকে নিয়ে অংশগ্রহণ করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে যোগদান করতে আসা সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান এবং বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের সন্মানে রাতে ডোনাল্ড ট্রাম্প আয়োজন করেন নৈশভোজের। লোটে নিউ ইয়র্ক প্যালেসের ওই নৈশভোজে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও যোগ দেন বলে জানান তাঁর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

নৈশভোজে নিউইয়র্কে সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরে গ্রুপ ছবিতে অংশ নেন।

এর আগে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের নর্থ ডেলিগেটস লাউঞ্জে বিশ্বনেতাদের সম্মানে আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজের অনুষ্ঠানে ট্রাম্পের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের পাশাপাশি একই টেবিলে বসে মধ্যাহ্নভোজও করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

টেলিভিশন ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, জাতিসংঘ সদর দপ্তরের নর্থ ডেলিগেটস লাউঞ্জের মধ্যাহ্নভোজে বিভিন্ন নেতারা পরস্পরের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন। এক সময় ট্রাম্প এগিয়ে আসেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কাছে। তাদের মধ্যে শুভেচ্ছা বিনিময় ও আলাপ করতে দেখা যায়।

পরে জাতিসংঘ মহাসচিব নিজের টেবিলে শেখ হাসিনাকে নিয়ে বসেন। আন্তোনিও গুতেরেসের টেবিলে আরও বসেন ডনাল্ড ট্রাম্প, আঙ্গেলা মের্কেলসহ ১৫জন বিশ্ব নেতা ।

জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে বিশ্ব নেতারা এখন নিউ ইয়র্কে রয়েছেন। সম্মেলনে আসা বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের সন্মানে বুধবার দুপুরে মধ্যাহ্নভোজের আয়োজন করেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ৯ টায় জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশন কার্যালয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, মঙ্গলবার দিনের শুরুতে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন হলে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেখা হয়। পরে দুপুরে জাতিসংঘ মহামসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরাসের দেওয়া মধ্যহৃাভোজ সভায় সাক্ষাৎ হয়েছে দুই নেতার। আর একই দিনে তৃতীয় দফা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কুশল বিনিময় হয়েছে স্বয়ং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেওয়া নৈশ্য ভোজ সভায়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের কাছে জানতে চাওয়া হয়, দুই নেতার তিন দফা কুশল বিনিময়ে কি আলাপ হয়েছে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কুশল বিনিময়ে সাধারণত একজন নেতা, আরেকজনের খোঁজ খরব নেন। এক্ষেত্রেও তেমনটাই হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here