prothombarta24

চোটের বিরুদ্ধে লড়াই করে সব সময়ই জিতেছেন মাশরাফি। চোট পেয়েছেন। আবার মাঠে ফিরেছেন। তার চোট জর্জরিত ক্যারিয়ারের চক্রটা এমনই। তবে এবার বিস্ময় ছড়িয়ে মাশরাফি নিজেকে নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়।

বিপিএলে গত শনিবার রাইলি রুশোর জোরালো শট আটকাতে দিয়ে তার বৃদ্ধাঙ্গুল ও তর্জনির মাঝে কেটে যায় অনেকটা। হয়েছিল রক্তক্ষরণ। হাতে নিতে হয়েছে ১৪ সেলাই। ক্ষতস্থান এখনো দগদগে। সেখানে ব্যান্ডেজ নিয়ে সোমবার মাঠে নামেন মাশরাফি।

কখন মাঠে নামার সিদ্ধান্ত নিলেন? ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বললেন, ‘যখন ফিট হয়েছি তখন খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ এর আগে টসের সময় মাশরাফি বলেছিলেন, ‘আপনি যখন খেলছেন তখন কোনো কিছু নিয়ে অস্বস্তিবোধ করতে পারেন না। আমি ঠিক আছি।’

হাতে চোট নিয়েই মাশরাফি বোলিং, ব্যাটিং, ফিল্ডিং; সব করেছেন। ব্যাটিংয়ে ২ বল খেলে রান পাননি। বোলিংয়ে ৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে ছিলেন উইকেটশূন্য। ফিল্ডিংয়ে নিয়েছেন একটি ক্যাচ। গেইলের ক্যাচটি নিয়েছেন এক হাতে। কীভাবে সম্ভব হলো?

‘ক্যাচ চলে এসেছে। অপশন ছিল না দুই হাত দেওয়ার। দ্রুত চলে আসলে কী হতো জানি না। খেলার সময় দুই হাত চলেও যায়। আস্তে ছিল বলে ধরতে পারছি’- জবাব দিয়েছেন মাশরাফি।

মাশরাফির খেলার প্রতি এতটা আগ্রহ, নিবেদন ও সাহসিকতায় মুগ্ধ বিপক্ষ দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ম্যাচ শেষে মাহমুদউল্লাহর কন্ঠে ঝরল মাশরাফির প্রশংসা।

মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘তাকে টুপি খোলা সালাম। ১৪টা সেলাই নিয়ে উনি খেলেছেন। অসাধারণ। আমি উনার জায়গায় থাকলে হয়তো জীবনেও খেলার চিন্তা করতাম না। উনি খেলেছেন। ভালো বোলিং করেছেন। দারুণ একটি ক্যাচও নিয়েছেন। বলটা স্পিন করছিল। গেইলের মতো ব্যাটসম্যানের উইকেট।’

Leave a Reply