চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ নারায়ণগঞ্জে

0
23
চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ নারায়ণগঞ্জে
চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ নারায়ণগঞ্জে
Spread the love

সোনারগাঁয়ে জাহিদ হাসান জিন্না চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ)  একুশে ফেব্রুয়ারি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জের সােনারগাঁও উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা ও স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান পালন করা হয়েছে। একুশে ফেব্রুয়ারি সকাল বেলা সোনারগাঁও উপজেলায় বাঙালির ভাষা বীরদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শহীদ মিনারে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের ঢল নেমে। মায়ের ভাষার মর্যাদা রক্ষার জন্য আত্মত্যাগকারীদের প্রতি ভালোবাসার কমতি ছিল না সাধারণ জনগণের। লাল-সাদা-হলুদ-বেগুনি কত বাহারি রঙের থোকা থোকা ফুলের স্তবকে ছেয়ে গেছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। রবিবার (২১ফেব্রুয়ারি) সোনারগাঁও উপজেলার সনমান্দী বালুয়াকান্দী বালুর মাঠে বিকেল পাঁচটার সময় সনমান্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ হাসানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার ভূমি গােলাম মােস্তফা মুন্না, ভাষা সৈনিক রেজাউল করিম, মঞ্জুরুল হক সিকদার, সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার আমিনুল ইসলাম,সাবেক ছাত্রনেতা জহিরুল ইসলাম খােকন সহ আওয়ামিলীগ ও জাতীয় পার্টির নেতা কর্মীরা’ প্রমূখ । এ সময় ভাষা সৈনিক রেজাউল করিম ও ভাষা সৈনিক ও বীর মুক্তিযােদ্ধা মঞ্জুরুল হক শিকদার ‘মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস মাতৃভাষা রক্ষা ইতিহাস মহান ভাষা আন্দোলনের সময়ের বিভিন্ন স্মৃতিচারণা করে বক্তব্য দেন৷আগামীর বাংলাদেশটা এই নতুন প্রজন্মের হাতে। তাই তাদের স্বাধীনতার ইতিহাস জানাতে হবে।মাতৃভাষা রক্ষা ও রাষ্ট্রীয় ভাষা হিসেবে স্বীকৃতির দাবিতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন পাকিস্তানি শাসকের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে রাজপথে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে জীবন দেন রফিক, সালাম, বরকত, শফিউর, জব্বারসহ বাংলা মায়ের দামাল ছেলেরা। তাদের রক্ত ও প্রাণের বিনিময়ে এসেছিল বাংলা ভাষার স্বীকৃতি ও সম্মান। আর তারই সিঁড়ি বেয়ে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জিত হয়। এসময় উপস্থিত ভাষা সৈনিকদের হাতেবিশেষ সম্মাননা পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

সুমন আল হাসান ,সোনারগাঁও নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

Leave a Reply