ক্রিকেটবীদ

একটা চায়ের টঙ দোকান। টঙ দোকানের সামনে পেতে রাখা বেঞ্চে চার পাঁচজন লোক বসেছিলেন। তাদের মধ্যে ছিলেন আমাদের ঝাক্কাসদা নিজেও। চায়ের কাপে চামচের ঠুংঠাং বাড়ি খাওয়ার শব্দ বিলীন হচ্ছিলো এই লোকগুলোর হইচই এর কারণে। এরা ব্যাটে বলে লেগে ছয় হলেও চেচায়। আবার বোলার ডটস বল দিলেও চেচায়। ক্রিকেট খেলা যেন তাদের উত্তেজনা তালগাছে উঠিয়ে দিয়েছে। খেলা চলার এক পর্যায়ে এক লোক চেচিয়ে বলা শুরু করলো, আজকেও ডাক খাইলো। এইটা কী ব্যাটসম্যান? নাকি ডাকহাঁস? সাথে সাথে ঝাক্কাসদা জবাব দিলেন, এইখানে দরকার ছিলো কারে জানেন?
– কারে ভাই?
– আশরাফুলরে। আশরাফুল চার ছক্কা মেরে বোলারদের বানায় দিতে পারতো ফুল ফুল।
– সহমত ভাই সহমত।

এ আলোচনা শেষ হতে না হতেই আরেকজন বলে বসলো, আচ্ছা ভাই ক্রিস গেইল যে এত ভাব মাইরা ব্যাট করতে নামে। ওয় নাকি আগে গরীব আছিলো?
তখন আগের লোকটা জবাব দিলো, সহমত ভাই সহমত। এটাতো আমারও মনের কথা।
– আমার নানায় বলছিলো, ক্রিস গেইল নাকি ক্রিকেট খেলার আগে ভ্যানে কইরা মাছ বেঁচতো।
– সহমত ভাই সহমত।

ঝাক্কাসদা মাথা নাড়িয়ে অমত প্রকাশ করলেন। আর বললেন, নারে ভাই না। আমার বাবা নিজের চোখে দেখছে, ছোটবেলায় ক্রিস গেইল সংসদ ভবনের সামনে বাদাম বেঁচতো।

Leave a Reply