কোম্পানিগঞ্জে গুলিবিদ্ধ সাংবাদিকের মৃত্যু

0
23
Spread the love
কোম্পানিগঞ্জে গুলিবিদ্ধ সাংবাদিকের মৃত্যু
কোম্পানিগঞ্জে গুলিবিদ্ধ সাংবাদিকের মৃত্যু….

নোয়াখালীর চলমান রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতিতে এবার প্রাণ গেলো এক সাংবাদিকের। মোঃ বোরহান উদ্দিন মোজাক্কির নামে ওই সাংবাদিক গত শুক্রবার নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার চাপরাশির হাট বাজারে বসুরহাট পৌরসভার নব-নির্বাচিত মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা কর্মী সমর্থকদের বিক্ষোভ মিছিলের ছবি তুলতে গেলে সেখানে কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান বাদল এর সমর্থকরা আব্দুল কাদের মির্জার সমর্থকদের সাথে কথা কাটা কাটির এক পর্যায়ে ঘটনা রূপ নেয় এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে । অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌঁছেই ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। সংঘর্ষে ২৩ জন গুলিবিদ্ধ হয় এবং ৬০ জনের উপরে আহত হয় । সেই সংঘর্ষের ভিতরে সংবাদ সংগ্রহের জন্য অবস্থান করা সাংবাদিক মোঃ বোরহান উদ্দিন মোজাক্কির গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় । তার শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি না দেখে ডাক্তার তাকে ঢাকায় রেফার করে দেয় । দীর্ঘ ১৩ ঘন্টা লাইফ সাফোর্ট ( আইসিইউ ) তে থাকার পর অবশেষে শনিবার রাত ৯ টা ৪৩ মিনিটে তিনি ইন্তেকাল করেন । উল্লেখ্য গত ১৬ জানুয়ারি বসুরহাট পৌরসভার নির্বাচন কে ঘিরে সত্য বচন করতে থাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক,সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোটো ভাই আব্দুল কাদের মির্জা । তিনি ৪র্থ বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হওয়ার আগ থেকেই নিজ দলের নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে বলতে থাকেন একের পর সত্য কথা । এতে তার উপর ক্ষুব্দ হয় জেলা সহ কেন্দ্রীয় আওয়ামী নেতারা । মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা অন্যায়ের বিরুদ্ধে,চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে, টেন্ডারবাজির বিরুদ্ধে,অপরাজনীতির বিরুদ্ধে বরাবরই দায়ী করে আসছেন নোয়াখালী (৪) আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরীকে । তিনি বলেন এই সমস্ত অপকর্মের মূল হোতা এমপি একরামুল করিম চৌধুরী এবং ফেনীর এমপি নিজাম হাজারি । এই সব অপকর্ম বন্ধ করার জন্যই তিনি আন্দোলন অব্যাহত রাখেন । মহাজোট সরকারের প্রথম কোনো নেতা দলীয় ভাবেই নিজ জেলায় হরতাল পালন করেছেন ।

Leave a Reply